ভোর ৫:৫৫ | বৃহস্পতিবার | ২৪শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চলে গেলেন নেত্রকোনার কৃতি সন্তান বারী সিদ্দিকী

ডিস্ক রিপোট নেত্র প্রতিদিন : বেশ কেয়েকদিন লাইফ সাপোর্টে থাকার পর না ফেরার দেশে চলে গেলেন প্রখ্যাত সংগীতশিল্পী ও বংশীবাদক বারী সিদ্দিকী।
আধ্যাত্মিক ও লোকগানের এই প্রথিতযশা শিল্পী চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার (২৩ নভেম্বর) দিনগত রাত সোয়া দুটার পর রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। (ইন্নালিল্লাহেৃরাজিউন)।
মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর। তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়ে আর অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
কণ্ঠশিল্পী, গীতিকার, বাঁশিবাদক বারী সিদ্দিকী হৃদরোগ ছাড়াও কিডনি জটিলতায় ভুগছিলেন। গত ১৭ নভেম্বর রাতে হৃদরোগে আক্রান্ত হলে বারী সিদ্দিকীকে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়।
কার্ডিওলজি বিভাগের চিকিৎসক আবদুল ওয়াহাবের তত্ত্বাবধায়নে সাত দিন আইসিইইউতে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হলেও তার অবস্থার অবনতি হয় ।
দীর্ঘদিন সঙ্গীতের সঙ্গে থাকলেও শিল্পী হিসেবে বারী সিদ্দিকী পরিচিতি পান ১৯৯৯ সালে। ঐ বছর লেখক-নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদের ‘শ্রাবণ মেঘের দিন’ ছবিটি মুক্তি পায়। এই ছবিতে তিনি ছয়টি গান গেয়ে নতুন করে আলোচনায় আসেন। তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশনে সংগীত পরিচালক ও মুখ্য বাদ্যযন্ত্রশিল্পী হিসেবে কর্মরত ছিলেন।
বারী সিদ্দিকী গ্রামীণ লোকসংগীত ও আধ্যাত্মিক ধারার গান করে থাকেন। তার গাওয়া ‘শুযা চান পাখি’, ‘আমার গাযে যত দুঃখ সয়’, ‘সাড়ে তিন হাত কবর’, ‘তুমি থাকো কারাগারে’, ‘রজনী’ প্রভৃতি গানের জন্য ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছেন।
বারী সিদ্দিকী ১৯৫৪ সালের ১৫ নভেম্বর নেত্রকোণা জেলায় এক সংগীত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। শৈশবে পরিবারের কাছে গান শেখায় হাতেখড়ি হয় । মাত্র ১২ বছর বয়সেই নেত্রকোণার শিল্পী ওস্তাদ গোপাল দত্তের অধীনে তার আনুষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ শুরু হয়।
তিনি ওস্তাদ আমিনুর রহমান, দবির খান, পান্নালাল ঘোষ সহ অসংখ্য গুণী শিল্পীর সরাসরি সান্নিধ্য লাভ করেন। ওস্তাদ আমিনুর রহমান একটি কনসার্টের সময় বারী সিদ্দিকীকে অবলোকন করেন এবং তাকে প্রশিক্ষণের প্রস্তাব দেন। পরবর্তী ছয় বছর ধরে তিনি ওস্তাদ আমিনুর রহমানের অধীনে প্রশিক্ষণ নেন।
এদিকে শুক্রবার (২৪ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় প্রথম জানাজা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে, দ্বিতীয় জানাজা সকাল সাড়ে ১০টায় রামপুরার বাংলাদেশে টেলিভিশন ভবনে, বাদ আসর তৃতীয় ও শেষ জানাজা নেত্রকোণী সরকারি কলেজ মাঠে আনুষ্টিত হয়। এরপর নেত্রকোণায় গ্রামের বাড়ীর পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন : Share on Facebook
Facebook
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» Lass mich daruber erzahlen Prinz Philip + KГ¶nigin Elizabeth: sarkastische Bemerkung z. Hd. Melania Trump durch Trauer-Tweet

» Singlesnet internet dating, online Online Dating Sites Review, POF, Singlesnet & fine Cupid

» Because the Months pass by: essential things to identify as the Relationship Grows

» Best Funny Tinder Bios To Get You First Dates

» Without a doubt more info on Is she flirting beside me?

» Muy putas xxx Sitios web para descubrir chicas Conocer chicas solteras en faceb k contactos gay jaen contactos almeria mujeres.

» Primeras citas 9 seГ±ales de darte cuenta si Existen “quГ­mica”

» Linus Sebastian Web Worth 2020. Who’s Linus Sebastian and what exactly is their web worth 2020?

» BBW internet dating Sites for Meeting Big and gorgeous Singles men and women

» Boundaries Around Your Sex in Christian Dating Are a Must.

» 3 secrets that are big Who Married Introverts Must Know

» Cougars and Their Cubs: Older Ladies Dating Notably Young Guys

» Murcia, la zona mediterrГЎnea que baГ±a la costa cГЎlida y donde sus gentes te darГЎn mГЎs de la razГіn de encontrar sus sitios insГіlitos, serГ­В­a igualmente tema de armonГ­a sobre gran cantidad de solteros.

» Articles on online dating sites : how apps that are dating the overall game for developing relationships

» Intimacy and sexual dilemmas. The necessity for closeness is a beneficial and part that is natural of everyday lives


১০ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ !! ২৪শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চলে গেলেন নেত্রকোনার কৃতি সন্তান বারী সিদ্দিকী

ডিস্ক রিপোট নেত্র প্রতিদিন : বেশ কেয়েকদিন লাইফ সাপোর্টে থাকার পর না ফেরার দেশে চলে গেলেন প্রখ্যাত সংগীতশিল্পী ও বংশীবাদক বারী সিদ্দিকী।
আধ্যাত্মিক ও লোকগানের এই প্রথিতযশা শিল্পী চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার (২৩ নভেম্বর) দিনগত রাত সোয়া দুটার পর রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। (ইন্নালিল্লাহেৃরাজিউন)।
মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর। তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়ে আর অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
কণ্ঠশিল্পী, গীতিকার, বাঁশিবাদক বারী সিদ্দিকী হৃদরোগ ছাড়াও কিডনি জটিলতায় ভুগছিলেন। গত ১৭ নভেম্বর রাতে হৃদরোগে আক্রান্ত হলে বারী সিদ্দিকীকে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়।
কার্ডিওলজি বিভাগের চিকিৎসক আবদুল ওয়াহাবের তত্ত্বাবধায়নে সাত দিন আইসিইইউতে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হলেও তার অবস্থার অবনতি হয় ।
দীর্ঘদিন সঙ্গীতের সঙ্গে থাকলেও শিল্পী হিসেবে বারী সিদ্দিকী পরিচিতি পান ১৯৯৯ সালে। ঐ বছর লেখক-নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদের ‘শ্রাবণ মেঘের দিন’ ছবিটি মুক্তি পায়। এই ছবিতে তিনি ছয়টি গান গেয়ে নতুন করে আলোচনায় আসেন। তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশনে সংগীত পরিচালক ও মুখ্য বাদ্যযন্ত্রশিল্পী হিসেবে কর্মরত ছিলেন।
বারী সিদ্দিকী গ্রামীণ লোকসংগীত ও আধ্যাত্মিক ধারার গান করে থাকেন। তার গাওয়া ‘শুযা চান পাখি’, ‘আমার গাযে যত দুঃখ সয়’, ‘সাড়ে তিন হাত কবর’, ‘তুমি থাকো কারাগারে’, ‘রজনী’ প্রভৃতি গানের জন্য ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছেন।
বারী সিদ্দিকী ১৯৫৪ সালের ১৫ নভেম্বর নেত্রকোণা জেলায় এক সংগীত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। শৈশবে পরিবারের কাছে গান শেখায় হাতেখড়ি হয় । মাত্র ১২ বছর বয়সেই নেত্রকোণার শিল্পী ওস্তাদ গোপাল দত্তের অধীনে তার আনুষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ শুরু হয়।
তিনি ওস্তাদ আমিনুর রহমান, দবির খান, পান্নালাল ঘোষ সহ অসংখ্য গুণী শিল্পীর সরাসরি সান্নিধ্য লাভ করেন। ওস্তাদ আমিনুর রহমান একটি কনসার্টের সময় বারী সিদ্দিকীকে অবলোকন করেন এবং তাকে প্রশিক্ষণের প্রস্তাব দেন। পরবর্তী ছয় বছর ধরে তিনি ওস্তাদ আমিনুর রহমানের অধীনে প্রশিক্ষণ নেন।
এদিকে শুক্রবার (২৪ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় প্রথম জানাজা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে, দ্বিতীয় জানাজা সকাল সাড়ে ১০টায় রামপুরার বাংলাদেশে টেলিভিশন ভবনে, বাদ আসর তৃতীয় ও শেষ জানাজা নেত্রকোণী সরকারি কলেজ মাঠে আনুষ্টিত হয়। এরপর নেত্রকোণায় গ্রামের বাড়ীর পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন : Share on Facebook
Facebook
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin